সোমবার, ০৩ অগাস্ট ২০২০, ০২:৩৫ অপরাহ্ন

শিরোনাম:
বাউফল  থেকে ওয়ারেন্ট ভুক্ত পলাতক আসামী গ্রেফতার। মাদারীপুরে পরিবহনের ধাক্কায় রিক্সাচালক নিহত । একজন আহত করোনায় বাল্য বিবাহের বন্ধে বসে নেই রাজৈর উপজেলা প্রশাসন। দুটি বাল্য বিবাহ বন্ধ।। মাদারীপুর শহর রক্ষা বাঁধে ভাঙন ॥ আতঙ্কে শহরবাসী। রাজধানীর পল্লবীতে শাহাদাত বাহিনীর শীর্ষ কিলার মহসিন র‌্যাবের সাথে বন্দুক যুদ্ধে নিহত। মাদারীপুরে নিখোঁজের দুই দিনপর মোটরসাইকেল চালকের লাশ উদ্ধার দারুস সালাম থেকে ৩০০ বোতল ফেন্সিডিলসহ একজন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার টেকেরহাটে পশুর হাট শেষ মুহুর্তে জমে উঠলেও ক্রেতার অভাব । রাজৈরে মুহুর্তেই কুমার নদের গর্ভে মালামালসহ বসতঘর বিলীন । রাজৈরে প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় কিশোরীকে কুপিয়ে আহতের ঘটনায় সেই বখাটে র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার ।
ধামরাই  নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলাম এর ৫ সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার

ধামরাই  নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলাম এর ৫ সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার

ধামরাই  নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলাম এর ৫ সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার

 

অফিস রিপোর্টঃ এলিট ফোর্স র‌্যাব তার সৃষ্টির সূচনালগ্ন থেকেই জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ এর বিরুদ্ধে আপোষহীন অবস্থানে থেকে নিরলস ভাবে কাজ করে আসছে। সাম্প্রতিক সময়ে নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন আনসার আল ইসলাম এর কর্মপরিকল্পনা ও অপতৎপরতা সম্পর্কে গোয়েন্দা সূত্রে জানতে পেরে র‌্যাব তার গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি করে।

গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-৪ এর আভিযানিক দল গতকাল ২৭ জুলাই  গভীর রাতে অভিযান  চালিয়ে  ঢাকা জেলার ধামরাই থানাধীন ধুলিভিটা বাস স্ট্যান্ড এলাকা হতে নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন  আনসার আল ইসলাম এর ৫ জন সক্রিয় সদস্য গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতরা হলো

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার মোঃ মিজানুর রহমান পলাশ (৩৫), মোঃ দুরুল হুদা (৪৪), মোঃ আব্দুর রশিদ (২১), মোঃ রাসেল (৩৭), মোঃ আব্দুল হাই (৪০)।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃতরা নিষিদ্ধ ঘোষিত সংগঠন আনসার আল ইসলাম এর সক্রিয় সদস্য বলে স্বীকারোক্তি দেয়। গ্রেফতারকৃতদের কাছ হতে আনসার আল ইসলাম এর বিভিন্ন ধরনের উগ্রবাদী সম্পর্কিত বই, লিফলেট মোবাইল উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতারকৃত মোঃ মিজানুর রহমান পলাশ (৩৫)’কে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায় যে, সে পেশায় ব্যবসায়ী। এক পর্যায়ে আনসার আল ইসলামের স্থানীয় এক সদস্যের সাথে পরিচয় হয় এবং সে তাকে আনসার আল-ইসলামের দাওয়াত দেয় এবং বিভিন্ন বই, লিফলেট ও ভিডিও সরবরাহ করে। এক পর্যায়ে নিষিদ্ধ ঘোষিত জঙ্গী সংগঠন আনসার আল ইসলামের সাথে জড়িয়ে পড়ে। বর্তমানে সে উক্ত সংগঠনের সক্রিয় সদস্যদের মধ্যে অন্যতম এবং সে চাপাইনবাবগঞ্জ এলাকায় আনসার আল ইসলামের অন্যতম সমন্বয়ক হিসেবে কাজ করে আসছে। সে দীর্ঘ দিন যাবত আনসার আল ইসলামের সাথে জড়িত রয়েছে। সে অনলাইনে ০৬টি জঙ্গি গোপনীয় গ্রুপের এডমিন। এই সকল গ্রুপের মাধ্যমে সে জঙ্গি সংগঠন তথা আনসার আল ইসলামের কার্যক্রম পরিচালনা করে ও সদস্যদের উদ্বুদ্ধ করে থাকে।

গ্রেফতারকৃত মোঃ দুরুল হুদা (৪৪)’কে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায় যে সে পেশায় একজন শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছে। আনসার আল ইসলামের চাপাইনবাবগঞ্জ এলাকার সমন্বয়ক মোঃ মিজানুর রহমান পলাশ এর সাথে তার পরিচয় হয়। সে তাকে আনসার আল ইসলামের সংগঠনের সাথে যুক্ত হওয়ার জন্য প্রস্তাব দেয়। উক্ত ব্যক্তির কার্যক্রম এবং সংগঠনের কাজে উদ্বুদ্ধ হয়ে আনসার আল ইসলামের সদস্য পদ গ্রহণ করে । বর্তমানে সে জঙ্গি সংগঠন আনসার আল-ইসলামের একজন সক্রিয় সদস্য এবং প্রায় দীর্ঘ দিন যাবত সংগঠনের সাথে জড়িত রয়েছে। সে বিভিন্ন মাধ্যম থেকে আনসার আল-ইসলামের বিভিন্ন ভিডিও, বইপত্র, মোবাইল এ্যাপস সংগ্রহ করতো।  সে নতুন সদস্যদের মোটিভেট করে এবং অর্থ সাহায্য করে থাকে।

গ্রেফতারকৃত মোঃ আব্দুর রশিদ (২১), পেশায় একজন রাজমিস্ত্রী। সে বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনের গোপণ কার্যক্রম দেখে জঙ্গি উদ্বুদ্ধ হয়। এক পর্যায়ে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলাম চাপাইনবাবগঞ্জ এলাকার মোঃ মিজানুর রহমান পলাশ এর সাথে তার পরিচয় হয় এবং তার মাধ্যমে আনসার আল ইসলামে যোগদান করে। বর্তমানে সে আনসার আল-ইসলামের একজন সক্রিয় সদস্য।

গ্রেফতারকৃত মোঃ রাসেল (৩৭), কে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায় সে পেশায় একজন মিস্ত্রী। সে মোঃ মিজানুর রহমান পলাশ এবং মোঃ দুরুল হুদার অনুপ্রেরণায় আনসার আল ইসলাম এর একনিষ্ঠ সদস্য হিসাবে অনেক দিন যাবত কাজ করে আসছে। সে সদস্যদের কাছ থেকে  নিয়মিত চাঁদা  উত্তোলন করে দুরুল হুদাকে প্রদান করত। সে আনসার আল-ইসলামের অর্থ শাখার একজন সক্রিয় সদস্য।

গ্রেফতারকৃত মোঃ আব্দুল হাই (৪০)’কে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানায় যে, সে পেশায় পেশায় একজন গ্রাম্য চিকিৎসক। এক পর্যায়ে নিষিদ্ধ জঙ্গি সংগঠন আনসার আল ইসলাম চাপাইনবাবগঞ্জ এলাকার অন্যতম সমন্বয়ক মোঃ মিজানুর রহমান পলাশ এর সাথে তার পরিচয় হয় এবং তার মাধ্যমে আনসার আল ইসলামে যোগদান করে।

আসামীদের জিজ্ঞাসাবাদে আরো জানা যায়, তারা নিয়মিত ভাবে তাদের সদস্যদের কাছ থেকে মেহেনতের মাধ্যমে ইয়ানত সংগ্রহ করে। এই দলের সদস্যরা এন্ড্রয়েট মোবাইল বা ল্যাপটপ এর মাধ্যমে বিভিন্ন প্রটেক্টিভ এ্যাপস্ ব্যবহার করে বিভিন্ন গোপন গ্রুপ তৈরী করে উগ্রবাদী সংবাদ, বই, উগ্রাবাদী ব্লগ, উগ্রবাদ উৎসাহ মূলক ভিডিও আপলোড ও শেয়ার করে নিয়মিত নিজেদের মধ্যে যোগাযোগ রক্ষা করে আসছিল। উল্লেখিত চার জন আনসার আল ইসলাম জঙ্গি সংগঠনের  নতুন সদস্য সংগ্রহ শাখার কর্মী, তারা নিয়মিত ০৮/১০ জন দেশের বিভিন্ন জেলায় তাদের দলের সদস্যদের সাথে গোপন বৈঠকের জন্য গমন করে নতুন নতুন সদস্য সংগ্রহ করে। ঢাকার সাভার ও ধামরাই এলাকার তাদের সাথিবন্ধুদের সাথে দেখা সাক্ষাত ও গোপন মিটিং করার জন্য গ্রেফতারকৃত আসামীরা ধামরাই থানাধীন ধুলিভিটা বাস স্ট্যান্ড এলাকায় তাদের পূর্ব নির্ধারিত স্থানে মিলিত হওয়ার চেষ্টা করছিল। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এই তথ্য জানতে পেরে  গতকাল রাত্রে তাদেরকে ধামরাই হতে গ্রেফতার করা হয়। এ সময় তাদের দলের আরো বেশ কয়েকজন পালিয়ে যায়। পলাতক জঙ্গীদের সমন্ধে তথ্য সংগ্রহ পূর্বক গ্রেফতারের প্রক্রিয়া চলামান রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

© All rights reserved © 2020

Design & Developed by : JM IT SOLUTION
error: Content is protected !!