1. abdulmotin52@gmail.com : ABDUL MOTIN : ABDUL MOTIN
  2. madaripurprotidin@gmail.com : ABID HASAN : ABID HASAN
  3. jmitsolutionbd@gmail.com : support :
মুকসুদপুরে প্রবাসী ছোট ভাইয়ের সনদে বড় ভাই চাকুরি করার অভিযোগ। এ অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন । - Madaripur Protidin
মঙ্গলবার, ২০ অক্টোবর ২০২০, ১০:৫১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ঢাকা জেলার আশুলিয়া থেকে ৯০৪ বোতল ফেন্সিডিলসহ স্বামী-স্ত্রীকে গ্রেফতার। রাজধানীর বসুন্ধরা থেকে হিজবুত তাহ্রীর ঢাকাউত্তরের প্রধান সমন্বয়ক’কে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪ মাদারীপুরের ৪ উপজেলায় ৪৪২টি পূজা মন্ডপে চলছে শারদীয়া দুর্গোৎসবের প্রস্তুতি মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া হতে কুখ্যাত রিটু বাহিনী প্রধান ১৫ মামলার আসামী রিটু ও তার দুই সহযোগীকে ২টি বিদেশী অস্ত্র, গুলি এবং মাদকসহ আটক করেছে র‌্যাব-৪ রাজধানীর কল্যাণপুর এলাকা থেকে ৯০০ পিস ইয়াবাসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার রাজৈরে দুর্গা পুজার প্রস্তুতি সভা শরীয়তপুরের পালং থেকে ২০০ পসি ইয়াবাসহ ০১ জন মাদক ব্যবসায়ী আটক। টেকেরহাটে পারিবারিক কলহের জের ধরে স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা । ছেলে আহত । মুকসুদপুরে প্রবাসী ছোট ভাইয়ের সনদে বড় ভাই চাকুরি করার অভিযোগ। এ অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন ।

মুকসুদপুরে প্রবাসী ছোট ভাইয়ের সনদে বড় ভাই চাকুরি করার অভিযোগ। এ অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধন ।

  • প্রকাশিত : রবিবার, ১৮ অক্টোবর, ২০২০
  • ২১৬ জন পঠিত

খোন্দকার রুহুল আমিন, টেকেরহাট (মাদারীপুর) প্রতিনিধি ঃ
সৌদি প্রবাসী ছোট ভাই রফিকুল ইসলামের সনদ ব্যবহার করে মাদ্রাসায় চাকরি পাওয়ার অভিযোগ উঠেছে বড় ভাই নজরুল ইসলামের বিরুদ্ধে । গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার মহারাজপুর ইউনিয়নের বনগ্রাম ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসায় বিপুল অংকের টাকার বিনিময় নিরাপত্তা কর্মী নিয়োগে এ অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে । রফিকুল ইসলাম ও নজরুল ইসলাম উপজেলার মহারাজপুর ইউনিয়নের মধ্য বনগ্রামের আ. ছালামের ছেলে।
এ ঘটনায় মাদ্রাসার সুপার মো. ইউনুছ আলি ও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার সাহাদাত হোসেন মোল্লার অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে রোববার সকাল ১০ টার সময় বরইতলা-মুকসুদপুর সড়কের মাটিয়া ব্রীজ নামক স্থানে বিক্ষোভ মিছিল ও মানবন্ধন অনুষ্ঠিত হয় । এ মানববন্ধনে এলাকার প্রায় শতাধিক লোকজন অংশগ্রহন করে । মানববন্ধন চলাকালে বক্তব্য রাখেন, নুরুল হক মাতুব্বর, সাহাবুদ্দিন মাতুব্বর ও এনামুল হক প্রমুখ । মানববন্ধন শেষে মাদ্রাসার সামনে গিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করে । এসময় বক্তরা এ দুর্নীতি ও অনিয়মের বিচার দাবি জানায় ।
এ ছাড়া রহস্যময় বিষয়টি নিয়ে এলাকাবাসি গত ১১ অক্টোবর ২০২০ জেলা প্রশাসকের বরাবর প্রেরিত ৩২জনের স্বাক্ষরকৃত অভিযোগে বলা হয়, মুকসুদপুর উপজেলার বনগ্রাম ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার যোগসাজশে বিপুল অঙ্কের টাকার বিনিময়ে গত ২৭ আগষ্ট ২০২০ নিরাপত্তা কর্মী ও আয়া পদ দুটিতে নিয়োগ দিয়েছে। নিরাপত্তা কর্মী পদে রফিকুল ইসলাম নামে যাকে চাকুরির নিয়োগ দিয়েছে। সে গত ২০১৮ সালে সৌদি আরবে অবস্থান করছে। সেই রফিকুলের সনদ ব্যবহার করে তার বড় ভাই নজরুল ইসলাম চাকুরি করছেন । বিনিময়ে ৬/৭ লাখ টাকা দিতে হয়েছে মাদ্রাসার সুপার ও শিক্ষা কর্মকর্তাকে। এ অনিয়ম ও দুর্নীতির বিচার ও শাস্তির দাবিতে রোববার বিক্ষোভ মিছিল ও মানববন্ধনসহ গত কয়েকদিন যাবত বিক্ষোভ মিছিলও করেন এলাকাবাসি।
নিরাপত্তা কর্মী পদে অংশগ্রনকারী বনগ্রামের বাসিন্দা নাজিমুদ্দিন বলেন , নিরাপত্তা কর্মী পদে আমি প্রার্থী ছিলাম । যেদিন পরীক্ষা হয়েছিলো সেদিন আমিসহ ছয়জন উপস্থিত খাতায় স্বাক্ষর করি। শিক্ষকরা এক এক জন প্রার্থীকে ডেকে ভিতরে নিচ্ছেন । যখন রফিকুল ইসলামের নাম ডাকলেন তখন তার বড় ভাই নজরুল ইসলাম উপস্থিত হয়ে সেখানে স্বাক্ষর করেন। এসময় উপস্থিত সবাই অবাক হয়ে শুধু বলেছিলো রফিকুল ইসলাম তো তার আপন ছোট ভাই । এ ছাড়া তার ভোটার আইডি কার্ডেও মোঃ নজরুল ইসলাম রয়েছে । কেন এই জালিয়াতিটা করলো ? তাছাড়া নজরুল ইসলাম আমার পূর্ব পরিচিত ।
এ ব্যাপারে নিরাপত্তা কর্মী পদে নিয়োগ পাওয়া রফিকুল ইসলাম ওরফে নজরুল ইসলাম বলেন, আমার নিয়োগ হয়েছে রফিকুল ইসলাম নামে। আমার সব কাগজপত্র ঠিক আছে । আমি স্থানীয় দলীয় কোন্দলের শিকার। আমার বয়স ৩৪ বছর এই বয়সে এসে একটা ছোট চাকুরি নিলাম তা নিয়েও এতো ঝামেলা শুরু করেছে প্রতিপক্ষরা ।
বনগ্রাম ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি ও মহারাজপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আশরাফ আলি মিয়া বলেন, এমন একটা বিষয় আমি শুনেছি । নিয়োগের দিন আমি ছিলাম তবে কার কি নাম তাতো আমি জানিনা । এ বিষয়ে মাদ্রাসার সুপার সাহেব ভালো জানেন।
এবিষয়ে বনগ্রাম ইসলামিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার মো. ইউনুছ আলি তার বিরুদ্ধে অভিযোগ অস্বীকার করে যুগান্তরকে বলেন, আমরা রফিকুল ইসলাম নামে কাগজপত্র পেয়ে নিয়োগ দিয়েছি এবং নিয়ম অনুযায়ি নিয়োগ প্রক্রিয়া শেষ করেছি । যদি কোন প্রার্থী কোন তথ্য গোপন করে তার জন্য আমরা দায়ী নই। আর এখানে অর্থের কোন লেনদেন হয়নি । এবিষয়ে ডিজির প্রতিনিধি ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তার দেখার দায়িত্ব ।
এ ব্যাপারে মুকসুদপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা সাহাদাত হোসেন মোল্লা তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার যুগান্তরকে বলেন, আমরা আমাদের বিধিমোতাবেক নিয়োগ দিয়েছি । যদি কেউ তথ্য গোপন করে সে দায়িত্ব তার ।
জেলা প্রশাসক শাহিদা সুলতানা বলেন, অভিযোগ পেয়েছি। বিধিমোতাবেক ব্যবস্থা নেয়া হবে ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
৩৯১,৫৮৬
সুস্থ
৩০৭,১৪১
মৃত্যু
৫,৬৯৯
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
১,৩৮০
সুস্থ
১,৫৪২
মৃত্যু
১৮
স্পন্সর: একতা হোস্ট

সর্বমোট ভিজিট করা হয়েছে

© All rights reserved © 2020

Design & Development By : JM IT SOLUTION
error: Content is protected !!