1. abdulmotin52@gmail.com : ABDUL MOTIN : ABDUL MOTIN
  2. madaripurprotidin@gmail.com : ABID HASAN : ABID HASAN
  3. jmitsolutionbd@gmail.com : support :
প্রাকৃতিক চিকিৎসাই নিরাপদ চিকিৎসা - Madaripur Protidin
বুধবার, ০৮ ডিসেম্বর ২০২১, ০৫:৫৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
রাজৈরে স্কাউটের মহাতাঁবু জলসা ফরিদপুরের ভাঙ্গায় ফেন্সিডিলসহ একজন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার মার্ডার মামলা থেকে রেহাই পেতে মার্ডার, সাবেক চেয়ারম্যানসহ ১৩জনকে আসামী করে পুলিশের চার্জশিট দাখিল, রাজৈরে আলোচিত সালাম হত্যা মামলার বাদীই এখন আসামী কাফরুলে গুলি করে গুরুতর আহত করার চাঞ্চল্যকর ঘটনায় ১ জনকে গ্রেফতার রাজৈরে তিন দিন ব্যাপি স্কাউট সমাবেশ উদ্বোধন রাজধানীর মিরপুর হতে ১০০ কেজি গাঁজাসহ চার মাদক ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪ উখিয়ার বালুখালী ১ টি অবৈধ স্বর্ণের বার এবং ৪,০০০ পিস ইয়াবাসহ ১ জন গ্রেফতার কক্সবাজার খুরুশকুল থেকে একলক্ষ পিস ইয়াবা ট্যাবলেটসহ মাদক কারবারী গ্রেফতার ঢাকার মিরপুর ১০ থেকে বিপুল পরিমানের জাল নোট সহ ৪ জন গ্রেফতার রাজধানীর তুরাগ থেকে সংঘবদ্ধ গাড়ি চোরাকারবারীর ২ সদস্য’কে গ্রেফতার চোরাই পিকআপ উদ্ধার

প্রাকৃতিক চিকিৎসাই নিরাপদ চিকিৎসা

  • প্রকাশিত : বুধবার, ২৫ আগস্ট, ২০২১, ৪.৪৩ পিএম
  • ১৬৬ জন পঠিত

প্রাকৃতিক চিকিৎসাই নিরাপদ চিকিৎসা
অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ (ভারপ্রাপ্ত), আবুল হাশিম সিপাহী
সরকারি রাজৈর  ডিগ্রি কলেজ

স্বাস্থ্য সচেতনতা সুস্থতার প্রধান অবলম্বন। অন্যদিকে স্বাস্থ্যবিধি, সুষম খাদ্য ও স্বাস্থ্যকর পরিবেশ সুস্থ থাকার প্রথম সোপান। একজন বিশিষ্ট জার্মান চিকিৎসকের অভিমত ড্রাগ কিউরস ডিজিস বাট হোয়াট ইজ দি রেমিডি অফ ইটস্ ইফেক্টস ? অর্থাৎ ঔষধ রোগ নিরাময় করে কিন্ত ঔষধের প্রতিক্রিয়া প্রতিরোধ করবে কিসে? অনুরূপভাবে একজন আমেরিকান সুচিকিৎসক মন্তব্য করেন- মেডিসিন অর ড্রাগ ইজ মোর ড্যানজারাস্ দ্যান দ্যাট অব ডিজি। অর্থাৎ ঔষধ অসুখের চেয়ে অধীক বিপজ্জনক। একজন ভারতীয় সুচিকিৎসকের মতে টেট্রাসাইকিলিন ক্যাপসুল, অধীক সেবন করলে শ্বেতী রোগ প্রকাশ পাবে। অনুরূপ ভাবে পেইন কিলার ক্যাপ অর ট্যাপ বেশী খেলে কিডনী ও লিভার ড্যামেছ হবে। পপ সম্রাট মাইকেল জ্যাকশন উত্তম উদাহরণ। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের সুচিন্তিত অভিমত ঔষধ সেবনের চেয়ে বিকল্প চিকিৎসা উত্তম চিকিৎসা। যেমন- ফিজিও থ্রারাপি, ট্রিটমেন্ট অব ডিজিস বাই মিন্স এ্যাকসারসাইজ, মেসেজ, দি ইউস অব, লাইট, হীট, ইলিক্ট্রিসিটি এ্যান্ড, অ্যাদার ন্যাচারাল ফোরসেস্ উদ্ধৃত্ত প্রস্তাবনা প্রমাণ করে প্রাকৃতিক চিকিৎসাই প্রকৃত চিকিৎসা। সংগত কারনে বর্তমান বিশে^র স্লোগান ব্যাক ্টু দি ন্যাসার অর্থাৎ প্রকৃতির কাছে ফিরে আসুন। মনোবল সুস্থ্য থাকার শক্তি জোগায়, দুশ্চিন্তা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দূর্বল করে। এ জন্য চিকিৎসকদের উচিত রোগিদের উৎসাহ প্রদান করা।

প্রকৃতপক্ষে সৎ চিন্তা ও মনোবল প্রাকৃতিক চিকিৎসার প্রধান সোপান। যা মানুষকে সুস্থ্য থাকতে প্রবল শক্তি যোগায়। অপরদিকে দুঃচিন্তা মানব দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল করে দুরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্ত হতে বাধ্য করে। দুঃচিন্তা দুর করার একমাত্র উপায় স্রষ্টার স্মরণ এবং বদলাতে হবে চিকিৎসার ধরণ। অসুখ হলেই ঔষধ সেবন নয়, ধৈর্য্য ধারণ করতে হবে এবং অস্থির মনকে বোঝাতে হবে, এজগত নিরবছিন্ন সুখের স্থান নয় ; রোগ-শোক, জ্বরা-মৃত্যু, দুঃখ-যাতনা আসতেই পারে তবে কোনটাই স্থায়ী নয়। আঁশ যুক্ত সবজি, ক্যালরী যুক্ত ও কোলেস্টরলমুক্ত খাবার, পরিমিত পরিশ্রমে লাভ করা যাবে রোগমুক্ত সুস্থ্য জীবন। অপরদিকে মাদকাসক্তি ও যৌনাচার মরণ ব্যধি এইড্সকে করবে আহবান। সতর্কতা ও ধর্মীয় অনুশীলন সুস্থ্যতার প্রধান অবলম্বন। উল্লেখ্য যে, ইসলাম ধর্মে ৫ ওয়াক্ত নামাজের পূর্বে পবিত্র ঠান্ডা পানি দ্বারা ডান বাম হাত পা মুখ মন্ঠল ও মাথা মাছেহ্, কুলকুচা করা হলে জীবনী শক্তি প্রতিনিয়ত সঞ্ছীবিত হবে। অন্যদিকে খাবার পূর্বে ডান বাম উভয় হাত ঠান্ডা পানিতে ধৌত করে খাবার খেলে ক্লোল্ড ব্যাল্যান্সষ্ট হয়ে প্যারালাইসিস এর প্রতিরোধে সহায়ক হবে। পেটপুরে খেলে মানুষের শারীরিক শক্তি সবল হবে অন্তর মরে যাবে। কম খেলে অন্তর শক্তিশালী হবে শরীর ও সুস্থ থাকবে।

গ্রীস্মকালে নদী, পুকুর অথবা সুইমিংপুলে সজোরে নিয়মিত সাঁতার কাটলে হাত, পা কিংবা কোমড়ের সংযোগস্থানের ব্যাথা বিনা ঔষধে সেরে যাবে। খাবার পূর্বে ও মাঝে পানি পান করলে এবং খাবার শেষে সঙ্গে সঙ্গে পানি পান না করলে চারটি রোগ হবে না ; হলে মুক্ত হবে যথা: এ, বি, সি, ডি, এ = আলসার বি= ব্লাডপ্রেসার সি= ক্যান্সার ডি= ডাইবেটিস্ কথিত আছে যে, খাবার আগে পানি পান রোগ না হবার কারণ, খাবার মাঝে অল্প পানি পান রোগ শেফার কারণ, খাবার শেষে সঙ্গে সঙ্গে পানি পান রোগ হবার কারণ। ওলামা মাসায়েক গণের অভিমত সূর্যউদয়ের সময় নিয়মিত ঘুমালে এমন দুরারোগ্য ব্যধিতে আক্রান্ত হবে, যা কোন ঔষধে সারবে না। জনৈক বুজুর্গের সিদ্ধান্ত মতে একজন প্যারালাইসিস রুগী এক শত রাকাত নফল নামাজ আদায় করে সম্পূর্ণ সূস্থ হয়ে ওঠেন। প্রত্যহ অতি প্রত্যুষে খালি পেটে পর্যাপ্ত পানি পান করলে পেটের পীড়া দুর হবে ও গ্যাসের সমস্যাও নিরাময় হবে। অপরদিকে পানি কম পান করলে ক্রমান্বয়ে কিডনি শুকিয়ে পরিনামে ড্রামেজ হবে। খাবার উত্তম রূপে চিবিয়ে খেলে জিহ্বা থেকে প্রচুর পরিমাণে এনজাইম নির্গত হবে। যা খাদ্য পরিপাকে সহায়ক হবে। স্বাস্থ্য গবেষনালদ্ধ অভিজ্ঞ চিকিৎসকগণের অভিমত পেটের পীড়ায় গরম পানি ও চুইংগাম চিবালে জিহবা থেকে পরিপাকে সহায়ক এনজাইম পর্যাপ্ত নির্গত হবে। অন্যদিকে ডান কাধে ঘুমালে পাকস্থলী ঢিলা থাকবে। যা খাদ্য পরিপাকে সহায়ক হবে। গুড়াক্রিমি, পুরাতন আমাশয়ে বেলসুটো রাত্রে ভিজিয়ে সকালে খালিপেটে কয়েকদিন খেলে এবং পাকা বিচা কলা খালি পেটে রাত্রে পেট ভরে খেলে এবং বেল পোড়া প্রত্যহ প্রাতে কয়েকদিন খেলে বিনা ঔষুধে আমাশয় ও গুড়া ক্রিমি নিশ্চিত দুর হবে। কোন কারণে মস্তিস্ক গরম হলে নাকের এক পাশ বন্ধ করে অন্য পাশ দিয়ে সজোরে শ্বাস নিয়ে পুনরায় বন্ধ করা নাকের অপর পাশ দিয়ে শ্বাস ছাড়তে হবে। এভাবে দশ থেকে পনের বার শ্বাস-প্রশ্বাস নিলে বিনা ঔষধে মাথা গরম দুর হবে।

গলায় কোন পীড়া হলে গরম পানিতে লবন দিয়ে গড়গড়া করলে গলার পীড়া উপশম হবে। গ্লান্ড, টনসিলাইটিস ইত্যাদি রোগ দেখা দিলে কোরআন পাকের আয়াত “ফালাওলা ইজাবালাগাতিল হালকুম” পড়ে তিন বার ঢোক গিললে গলার যে কোন পীড়া ইন্শাল্লাহ উপশম হবে। চোখে আঘাত জনিত রোগ দেখা দিলে বিশেষজ্ঞ সুচিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে প্রাকৃতিক চিকিৎসা হিসাবে পরিস্কার পানিতে পরিস্কার কাপড় ভিজিয়ে মুখ দিয়ে ফুক দিয়ে আক্রান্তচোখে ভাপ দিলে চক্ষু পীড়া উপশম হবে। অন্য দিকে বিশেষজ্ঞদের অভিমত চোখে নিয়মিত পবিত্র সুরমা ব্যবহার করলে কখনো ছানি পড়বে না। কোন চক্ষু পীড়াও দেখা দিবে না। বাতজনিত কোন সমস্যা শরীরে অনুভূত হলে ঔষুধ ব্যবহারের চেয়ে যোগব্যায়াম বেশী কার্যকর। সাথে গরম পানিতে গোসল এবং প্রত্যহ এক কোয়া রসুন নিয়মিত সেবন করলে নিশ্চিত বাত রোগ নিরাময় হবে।

সুনিদ্রা শারীরিক সুস্থতার অন্যতম সহায়ক। সেক্ষেত্রে অনিদ্রা অনুভূত হলে ঘুমের পূর্বে প্রচুর ঠান্ঠা পানি পান করলে এবং বিশুদ্ধ সরিষার তৈল ঠান্ডা পানি সহ মাথার তালুতে ব্যবহার করলে এবং হাড়ের চিরুনী দিয়ে একাধিকবার মাথা আচড়ালে বিনা ঔষুধে সুনিদ্রা শয়ন করে প্রবেশ করবে। সদ্য প্রসূত শিশুকে মায়ের শাল দুধ ও নিয়মিত মাতৃদুগ্ধ পান করালে শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি পাবে অপরদিকে মায়েরা ব্রেষ্ট ক্যান্সার থেকেও রক্ষা পাবেন। সুস্থ্যতার জন্য নিয়মিত ব্যায়াম ও প্রত্যহ প্রাতে ছোলা ভিজিয়ে খেলে শারীরিক শক্তি সঞ্ছীবিত হবে এবং আজীবন রোগ মুক্ত নবজীবন লাভ করা সম্ভব হবে। ধর্মীয় অনুশীলন মেনে চলুন এবং রোগ প্র’তিরোধক মৌসুমী ফল যখন যেটা পাওয়া যায় প্রচুর পরিমাণে খান। তাহলে বিনা ঔষধে রোগ মুক্ত থাকতে পারবেন। রোগ চিকিৎসায় সেবার ভূমিকা অন্যতম। রোগীকে সান্তনা দিতে হবে ্রকোন ভয় নেই, শীগ্রই সুস্থ হয়ে যাবে” মনে রাখা দরকার মনোবল সুস্থতার সহায়ক। অপরদিকে যখন কোন ব্যক্তি বা চিকিৎসক রোগীকে বলেন, এ রোগে আপনার রক্ষা নেই, তাৎক্ষনিকভাবে রোগীর মনোবল ভেঙ্গে যায়, জীবকোষ দুর্বল হয়ে রোগী মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

বিশেষজ্ঞদের অভিমত, মেডিটেশন অস্থির ও ভীরুমনকে স্থির ও শক্তিশালি করতে পারে। প্রখ্যাত থাইরোলজিষ্ট প্রফেসর ডাঃ মোঃ নজরুল ইসলাম অনুরূপভাবে মন্তব্য করেন যে, মেডিটেশন রোগ নিরাময় ক্ষমতাকে সংজ্জীবিত করে। তিনি এক নিবন্ধে উল্লেখ করেন একজন দুর্বল ব্যক্তি ক্লান্তিতে মাটিতে পড়ে আছে নিকটেই তার বাড়ী এমন সময় সে শুনলো বাঘ এসেছে, মুহুর্তের মধ্যে সে উঠে দৌড় দিবে। শক্তিহীন মানুষটি এ শক্তি পেলে কোত্থেকে? বাঘের হাতে ধরা পড়লে তার কি হবে? তার ব্রেনের হাইপ্রোব্যালাসায় থেকে নানা ধরণের হরমন নিঃসরিত হয়ে থাকে যোগালো পালানোর শক্তি। অনুরূপভাবে সাইক্লোজিকাল ইনপুট দিয়ে ফিজিক্যাল আউটপুট সৃষ্টি হয়। অর্থাৎ মনের শক্তির মাধ্যমে নার্ভাস সিস্টেমকে প্রভাবিত করে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে সজ্জিবিত ও পূর্ণক্ষম করে তুলতে পারে।
এইড্স এ আক্রান্তকোন রোগী আত্মহত্যার প্রস্তুতি নেয়। ক্যান্সার বা হেপাইটাইসিস আক্রান্তরোগী চরম হতাশায়গ্রস্তহয়। অর্থাৎ রোগী মনবল হারিয়ে ফেলে ফলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা হ্রাস পেয়ে ঔষধে কাজ করে না। কাউসিলিং করে তার নার্ভাস সিস্টেমকে চাঙ্গা করে তাকে নিরাময় করা সম্ভব। প্রফেসর ডাঃ নজরুল ইসলাম স্বীকার করেন যে, প্রচলিত চিকিৎসা ব্যবস্থায় রোগীকে উপযুক্ত কাউসিলিং করে রোগীর মানসিক ও আত্মিক শক্তি বৃদ্ধি না করে শুধু কিছু ঔষুধ লিখে ডাক্তার তার দায়িত্ব শেষ করে দেন ফলে রোগী আরগ্যের পরিবর্তে রোগ জটিল রূপ ধারণ করে।

সমকাল পত্রিকার ভাষ্যমতে করল্লা বা উচ্ছার রস এলর্জি প্রতিরোধে দারুন উপকারী। ডায়বেটিস রোগীদের জন্য ও এটি উত্তম। প্রতিদিন নিয়মিত করল্লার রস খেলে রক্তের সুগার নিয়ন্ত্রনে রাখা সম্ভব। করল্লায় যথেষ্ট পরিমানে বিটা ক্যারোটিন রয়েছে যা দৃষ্টি শক্তি ভালো রাখতে এবং চোখের যে কোন সমস্যা সমাধানে বিটা ক্যারোটিন উপকারী। করল্লাতে প্রচুর পরিমানে আয়রন রয়েছে। আর আয়রন হিমোগ্লোবিন তৈরি করতে সাহায্য করে। করল্লায় প্রচুর ক্যালসিয়াম ও পটাসিয়াম তথা ভিটামিন সি রয়েছে যা দাঁত ও হাড় শক্ত রাখার জন্য উপকারী। ভিটামিন সি ত্বক ও চুলের জন্য একান্ত উপকারী। তাছাড়া ভিটামিন সি আমাদের দেহে প্রোটিন ও আয়রন জোগায় যা ভাইরাস ও ব্যাকটিরিয়া বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলে। করল্লায় রয়েছে ভিটামিন বি কমপ্লেক্স, ম্যাগ-নেমিয়াম, ফলিক এসিড়, জিঙ্ক ফসফরাস যা ডায়বেটিস রোগীর জন্য মহা উপকার, করল্লায় রয়েছে পলি, প্রোপটাইড পি, যা ব্লাড় ও ইডরিন সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রনে রাখতে সাহায্য করে। নানা রকম ব্লাড ডিজঅর্ডার যেমন স্কাবিজ, রিং ওয়ার্মের সমস্যার করল্লা উপকারী যা ব্লাড পিউরিকিফেশনে সাহায্য করে। অতিরিক্ত এলকোহল খাওয়াতে লিভার ড্যামেজ হলে সেক্ষেত্রে করল্লার রস দারুন উপকারী।
ব্লাড ডিজঅর্ডারে লেবুর রস ও করল্লার পাতার রস মিশিয়ে খেলে উপকার হয়। করল্লার পাতার রসের সাথে মধু মিসিয়ে খেলে অ্যাজমা ব্রঙ্গ¦াইটিস ফেরেনজাইটিসের মত সমস্যা কমতে সাহায্য করে। এর মাধ্যমে ফাংগাল ইনফেকসন প্রতিরোধ করা সম্ভব। মনে রাখা প্রয়োজন ডাইবেটিস বা বহুমুত্র রোগের প্রধান লক্ষন ব্লাডে সুগারের পরিমান বেড়ে যাওয়া, উৎপত্তির অন্যতম কারন অলসতা। ছেলে বেলা থেকে নিয়মিত ঘাম ঝরানোর মত দৈহিক পরিশ্রম করলে ডাইবেটিস থেকে মুক্ত থাকা সম্ভব।

অভিজ্ঞ চিকিৎসকের অভিমত; জ¦র, কোন রোগ নয় অন্য রোগের উপসর্গ মাত্র। জ¦র বেড়ে গেলে মাথা ও শরীর ঠান্ডা না হওয়া পর্যন্ত পানি ঢালা এবং গামছা বা টাওয়েল ভিজিয়ে গা হাত মাথা মুছে ঠান্ডা করতে হবে। ম্যালেরিয়া জ¦রে আক্রান্ত হলে হ্যায়ার এন্টিবায়োটিক ও কুইনাইন খাওয়ানো হয়। কুইনাইনে জ¦র সারে কিন্তু কুইনাইনের প্রতিক্রিয়া কিসে সারবে? ম্যালেরিয়ার নিরাপদ ভেষজ চিকিৎসা হিসেবে ম্যালেরিয়া জ¦রে আক্রান্ত হলে প্রত্যহ সকালে খালি পেটে আধা কাপ কালো মেঘের পাতার রস ৭ দিন খাওয়ালে ম্যালেরিয়া জ¦র নিরাময় হবে ইনশাল্লাহ্। ক্যানসার নিরাময়ের জন্য আদা, গরম মসলা হলুদ গুড়া হালকা গরম পানিতে গুলিয়ে নিয়মিত পানি খেলে প্রতিশোধক হিসেবে কাজ করবে। আমাদের সময় ১০ অক্টবর ২০১৭ ভাষ্য মতে লেবুর রস মানুষের শরীরের, ত্বক ও চুলের জন্য উপকারী। অনুরূপভাবে নিয়মিত চায়ের সঙ্গে লেবুর খোসা মিশিয়ে পান করলে মানুষের শরীরের ক্যান্সার কোষ তৈরি করতে পারেনা। কথিত আছে যে জনৈক ক্যান্সারে আক্রান্ত রোগী সুচিকিৎসার জন্য আমেরিকা যাচ্ছিলেন, পথিমধ্যে কোন এক বুযুর্গ আমল বাতলালেন “ ইয়া বাদিউল আজায়েবে বিল খাইরি ইয়া বাদিউ” রোগী কয়েক দিন নিয়মিত আমল করে আমেরিকা না গিয়েই বিনা ঔষধে আরোগ্য লাভ করলেন। লেবুর খোসা সরাসরি ত্বকে প্রয়োগ করলে ত্বকেরসানবার্ন প্রতিরোধ করে। লেবুর খোসায় রয়েছে প্রচুর ভিটামিন “সি” যা নিয়মিত খাবারের সঙ্গে খেলে আমাদের হাড়কে মজবুত করতে সাহায্য করে। তাছাড়া হাড়ের বিভিন্ন অসুখ যেমনঃ পলি আর্থাইটিস, অস্টিও প্রোসিস এবং বিভিন্ন ধরনের আর্থাইটিস প্রতিরোধ করে। দাতের অসুখ ও ওজন কমানের জন্য লেবুর খোসার উপকারিতা অনেক। কোলেস্টরেলের মাত্রা হ্রাস, রক্তচাপ নিয়ন্ত্রন সহ হৃদ রোগ যেমনঃ স্টোক ও হার্ড এ্যাটাক প্রতিরোধ করে। লেবুর খোসা খাবারের সঙ্গে চিবিয়ে খেলে হজম শক্তি বৃদ্ধি ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমাত বাড়ায়।
“বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সুচিন্তিত অভিমত”
ল্যাক অফ ভিটামিন – ই ইনক্রিষ্ট দি চ্যান্স অব অ্যাভরশন সুতরাং গর্ভসঞ্চারের পূর্ব থেকে গর্ভকালিন সময় ভিটামিন ই পর্যাপ্ত পরিমানে খেতে হবে। ভিটামিন “ই” স্বাস্থ্য সুরক্ষার সহায়ক হবে ইনশাল্লাহ্। ভিটামিন ই সমূহঃ- চিনা বাদাম, মুরগির ডিমের কুসুম, কটলিভার তৈল, শুকনা মরিচ, সয়াবিন তৈল, হলুদ, গরুর দুধের ঘি, ছোলার ডাল, পেস্তা, কালো কচুর শাক, কচুর মুখি, সবুজ কচু শাক, দারু চিনি গুড়া, সবুজ পালন শাক, , মাশ কালাইর ডাল, পাকা জলপাই ।

করোনায় আক্রান্ত রোগিদের ভেষজ চিকিৎসা; অভিজ্ঞ চিকিৎসক হাকীম সৈয়দ আনোয়ার আব্দুল্লাহ্ অভিমত। করোনায় আক্রান্ত হলে গলা ব্যথা, শুকনা কফ ছাড়া কাশি প্রথম লক্ষন। করোনা ভাইরাস শরীরে প্রবেশের সঙ্গে সঙ্গে আক্রমন করেনা। সময় নিয়ে ধীরে ধীরে শরীরের মধ্যে সংক্রোমন বাড়তে থাকে। সহজ চিকিৎসা হলো গরম মসলা, হিমালয় সল্ট, আদা সহ হালকা রং চা বার বার পান করা। হিমালয় পিং সল্ট গরম পানি দিয়ে গরগরা করা। তাছাড়া আদা, লবঙ্গ ও একটা গোল মরিচ পানিতে মিশিয়ে সামন্য মধু সহ চায়ের সঙ্গে পান করা এবং উক্ত গরম পানি দ্বারা বার বার গরগরা করা হলে গলায় যে ভাইরাস গুলো ঢুকে সে গুলো মারা যায়। রং চায়ের মধ্যে এন্টিসেপ্টিক গুনাগুন রয়েছে। বার বার শুকনা কাশির ফলে গলার টিস্যু ফেটে যায়। ভেষজ মিশ্রিত চা ঐ ইনফেকশন রোধ করে। মধুকে বলা হয় কিংস অফ মেডিসিন সাথে কালোজিরার তৈল মিশ্রিত করে খেলে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে গিয়ে রোগী দ্রুত সুস্থ হয়ে উঠবে ইনশাল্লাহ্। পেটের সমস্যা দেখা দিলে নিমপাতার রসের সাথে এক চা চামচ হলুদের গুড়া হালকা গরম পানিতে মিসিয়ে সকালে ও রাত্রে খেলে পেটের ইনফেকসন কমে যাবে। জ¦র, ক্রনিক ব্যাথা বাতজ¦র, সর্দি ও মাথা ব্যাথা বেশি হলে গরম পানিতে নিশিন্দারপাতার রস ও ফুল ফল ও মূলের নির্যাশে উপসম করে। হৃদ রোগে আক্রান্ত হলে হতাশ না হয়ে পূর্ণআস্থার সাথে প্রত্যহ সকাল সন্ধা বুক চেপে ধরে ৭ বার আমল করুন “ ইয়া ক্বভিউল ক্বদিরুল মোক্তাদিরু ইয়া ক্বলবি” ইনশাল্লাহ্ সুস্থ থাকবেন। যদি রোগ ব্যধিকে নির্বাসনে দিতে চান কারণে ও অকারণে ঔষধ সেবন থেকে বিরত হন। অন্তে প্রাকৃতিক চিকিৎসা আয়ুর্বেদ হারবাল ও হোমিওপ্যাথিককে চিকিৎসা হিসাবে বেছে নিন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বমোট ভিজিট করা হয়েছে

© All rights reserved © 2021

Design & Developed By : JM IT SOLUTION