1. abdulmotin52@gmail.com : ABDUL MOTIN : ABDUL MOTIN
  2. madaripurprotidin@gmail.com : ABID HASAN : ABID HASAN
  3. jmitsolutionbd@gmail.com : support :
মাদারীপুরে প্রেমিকাকে হত্যা মামলায় ১৪ বছর পর প্রেমিকের ফাঁসির আদেশ - Madaripur Protidin
মঙ্গলবার, ২৯ নভেম্বর ২০২২, ০৬:১২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
মাদারীপুর জেলাজুড়ে রাতভর ডাকাত আতংক ॥ সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল ॥ সাধারণ মানুষ রাত জেগে পাহাড়া ॥ মসজিদে মসজিদে মাইকিং রাজৈরে বিয়ে বাড়িতে দাওয়াত খেয়ে অর্ধশতাধিক অসুস্থ । রাজৈরে    ৩৮ কেজি গাঁজাসহ  কুখ্যাত মাদক সম্রাজ্ঞী লায়লা ও তার দুই সহচর   মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে দেশের মানুষ আওয়ামীলীগকেই ভোট দিবে -শাজাহান খান এমপি মাদারীপুরে যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় ভ্যানচালক নিহত রাজৈরে বঙ্গবন্ধু ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত । রাজৈরের চরমস্তফাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে দুইদিন ব্যাপী সুবর্ণ জয়ন্তী উৎসব ও একাডেমিক ভবনের উদ্ধোধন মাদারীপুরে ইউপি সদস্যর হাত-পায়ের রগ কেটে হত্যার চেষ্টা রাজধানীর পল্লবীতে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে কিশোর গ্যাং গ্রুপের” লিডার মোঃ হাসিবুল হাসান @ বাংলা অনিকসহ ৫ জন সদস্য’কে দেশীয় অস্ত্রসহ গ্রেফতার ঢাকার আশুলিয়া থেকে মোটরসাইকেল চোর চক্রের ২ জন চোরকে গ্রেফতার ও চোরাইকৃত মোটরসাইকেল উদ্ধার।

মাদারীপুরে প্রেমিকাকে হত্যা মামলায় ১৪ বছর পর প্রেমিকের ফাঁসির আদেশ

  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২২, ৫.৩৭ পিএম
  • ৩১ জন পঠিত

টেকেরহাট (মাদারীপুর) সংবাদদাতা:
মাদারীপুরে ২০০৮ সালে ডেকে নিয়ে প্রেমিকাকে শ^াসরোধ করে হত্যা মামলায় ১৪ বছর পর শহিদুল মোল্লা নামে এক প্রেমিককে ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার দুপুরে অতিরিক্ত জেলা ও দায়র জজ আদালত (প্রথম আদালদত) লায়লাতুল ফেরদৌস এ রায় দেন। একইসাথে শহিদুল মোল্লাকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানাও করেছেন আদালত। দন্ডপ্রাপ্ত শহিদুল সদর উপজেলার ব্রাহ্মনদি এলাকার মোহাম্মদ মোল্লার ছেলে। অপরদিকে প্রেমিকা ফরিদা আক্তার (২২) সদর উপজেলার মহিষেরচর এলাকার করিম ক্কারীর মেয়ে।

মামলার বিবরনে জানা যায়, ২০০৮ সালের ০৬ মে প্রেমের সম্পর্কের জেরে প্রেমিক শহিদুল ঘুরতে বের হয় প্রেমিকা ফরিদাকে নিয়ে। পরে কালকিনি উপজেলার (বর্তমানে ডাসার উপজেলা) ধুয়াসার এলাকায় নিয়ে বিয়ের আশ^াস দিয়ে শারিরিক সম্পর্কের পর শ^াসরোধ করে হত্যা করে। ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায় শহিদুল। পরদিন নিহতের লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায় পুলিশ। ওইদিনই ফরিদার বড়ভাই হান্নান ক্কারী বাদী হয়ে কালকিনি থানায় শহিদুল মোল্লাকে একমাত্র আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে তৎকালীন কালকিনি থানার এসআই হারুণ অর রশীদ শহিদুলকে অভিযুক্ত করে ২০০৯ সালের ২২ জুন আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। একই সময় ২০ জনকে সাক্ষিকে সাক্ষ্য দেয়ার আবেদনও করেন। পরে বিভিন্ন যুক্তি-তর্ক শেষে ১২ জন্য সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আদালত আসামী শহিদুলকে ফাঁসির আদেশ দেন। পাশাপাশি ৫০ হাজার টাকা জরিমানাও করেন।

মাদারীপুর আদালতের পিপি এ্যাডভোকেট সিদ্দিকুর রহমান সিং জানান, ঘটনার ১১ বছর ৪ মাস পলাতক ছিল আসামী শহিদুল মোল্লা। পরে ২০১৯ সালে গ্রেফতার হয় সে। এই হত্যা মামলার রায়ে বাদী ও রাষ্ট্রপক্ষ সন্তুষ্ট। দ্রুত রায় কার্যকরে সরকারের কাছে আবেদন জানানো হবে।

অপরদিকে রায়ে ক্ষুব্ধ হয়ে আসামীপক্ষের আইনজীবি এ্যাডভোকেট রেজাউল করিম জানান, রায়ের ব্যাপারে উচ্চ আদালতে আপিল করা হবে। এই হত্যাকান্ডে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কিংবা সাক্ষীরা সঠিকভাবে আদালতে প্রমান দিতে পারেনি। আসামীপক্ষ রায়ে অসন্তোষ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বমোট ভিজিট করা হয়েছে

© All rights reserved © 2021

Design & Developed By : JM IT SOLUTION