1. abdulmotin52@gmail.com : ABDUL MOTIN : ABDUL MOTIN
  2. madaripurprotidin@gmail.com : ABID HASAN : ABID HASAN
  3. jmitsolutionbd@gmail.com : support :
নির্মানের সাড়ে তিন বছর পর জট খুললো মাদারীপুর সদর হাসপাতাল - Madaripur Protidin
বুধবার, ২৯ মার্চ ২০২৩, ০৪:০৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
মাদারীপুরে এক ব্যবসায়ীকে মারধর করে টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ, হাসপাতালে ভর্তি  পটুয়াখালী সদর থানা হতে র‌্যাবের হাতে ২  গাঁজা ব্যবসায়ী গ্রেফতার মৃত্যুর পর মিশর থেকে বকেয়া টাকা ফেরত আনলো মাদারীপুর পুলিশ মাদারীপুরে শতাধিক মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মাননা দিলেন জেলা পরিষদ মাদারীপুরে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপিত মাদারীপুরে ইফতার করতে গিয়ে দুই কলেজছাত্রকে কোপাল কিশোর গ্যাং মাদারীপুরে বাসের ধাক্কায় প্রাণ গেল ইজিবাইক চালকের, আহত ৩ এবার নির্বাচনে না আসলে বিএন‌পির অস্তিত্ব থাক‌বে না: শাজাহান খান মাদারীপুরে রাজিব হত্যায় ২৩ জনের ফাঁসি, ৬ জনের যাবজ্জীবন,৪জন বেকসুর খালাস রাজধানীর দারুসসালাম এবং ঢাকা জেলার আশুলিয়া এলাকা হতে ৪০ বোতল ফেনসিডিল ও ১৬ কেজি গাজাসহ ৩ জন মাদক কারবারি গ্র্রেফতার

নির্মানের সাড়ে তিন বছর পর জট খুললো মাদারীপুর সদর হাসপাতাল

  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩, ৪.৫৭ পিএম
  • ৩৭ জন পঠিত

মাদারীপুর প্রতিনিধি
মাদারীপুরে আড়াইশো শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালটি ২০১৯ সালের ১২ নভেম্বর স্বাস্থ্য বিভাগের
কাছে হস্তান্তর করে গণপূর্ত অধিদপ্তর। হস্তান্তরের প্রায় সাড়ে তিন বছর পর আজ বৃহস্পতিবার সকালে হাসপাতালটি উদ্বোধন করেন মাদারীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য শাজাহান খান। তবে হাসপাতালটির কার্যক্রম পুরোপুরি চালু করা সম্ভব হয়নি। জনবল সংকটের কারনে আংশিক কার্যক্রম চালু হয়েছে।

সদর হাসপাতাল ও সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সূত্র জানায়, মাদারীপুর পৌরসভার সৈয়দারবালী এলাকায় একশো শয্যা থেকে আড়াইশো শয্যার সদর হাসপাতালটি সাততলা ভবনে উন্নীত করা হয়। এতে ৩০ কোটি টাকা ব্যয় হয়। নির্মাণ শেষে ২০১৯ সালের ১২ নভেম্বর স্বাস্থ্য বিভাগের কাছে নতুন ভবনটি হস্তান্তর করে গণপূর্ত অধিদপ্তর। এরপর নতুন ভবনে সংযুক্ত করা হয় তিন কোটি টাকার সিটি স্ক্যান মেশিন, ডিজিটাল এক্সরে, আল্ট্রাসনোগ্রাম, ১০টি কার্ডিয়াক মনিটরসহ কয়েক কোটি টাকার যন্ত্রপাতি। এটি চালুতে সবশেষ ১৪ নভেম্বর উচ্চ আদালতের মাধ্যমে লিগ্যাল নোটিশ দেন সুপীম কোর্টের আইনজীবী আবদুল্লাহ আল আশিক। এরপর হাসপাতালটি চালু না হওয়ার কারণ জানতে চেয়ে রুল জারি করেন হাইকোর্ট। হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের ও বিচারপতি মোহাম্মদ আলী দ্বৈত বেঞ্চ আগামী দুই মাসের মধ্যে আদালতকে হাসপাতালটি চালু না হওয়ার কারণ জানাতে নির্দেশ দেন। এর আগেও আড়াইশো শয্যার সদর হাসপাতালটি চালুর দাবিতে মানববন্ধন, প্রতীকি অনশন ও গণস্বাক্ষরের আয়োজন করে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন।

তবে পর্যপ্ত জনবল না থাকায় হাসপাতালটি চালু করা প্রায় অসম্ভব ছিল। সবশেষ অস্থায়ী ভিত্তিতে কিছু জনবল নিয়োগ দিয়ে হাসপাতালটি আংশিক চালু উদ্যোগ নেওয়া হয়। বর্তমানে আড়াইশো শয্যার নতুন হাসপাতালটির মাত্র ৫০ শয্যা চালু হয়েছে। উদ্বোধন অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য ও মাদারীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য শাজাহান খান বলেন, ‘আমাদের আগেই একশ শয্যার হাসপাতাল ছিল। এখন আমারা মোট ২৫০ শয্যার হাসপাতাল উদ্বোধন করলাম। কিন্তু লোকবলের কারণে আমরা ৫০ শয্যার কার্যক্রম করতে পারবো। সব মিলিয়ে মোট ১৫০ শয্যার কার্যক্রম এইখানে পরিচালিত হবে। আগামীতে লোকবল নিয়োগের মাধ্যমে পরিপূর্ণ ভাবে ২৫০ শয্যার কার্যক্রম চালু করা হবে।’

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন সুপীম কোর্টের আইনজীবী আবদুল্লাহ আল আশিক। তিনি বলেন, ‘আমরা আংশিক উদ্বোধন চাইনি। পুরোপুরি চালু না হলে সাধারণ মানুষ তার চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত হবে। তাই দাবী জানাই দ্রুতই সম্পূর্ণ হাসপাতাল চালু হোক।’ মাদারীপুর শহরের স্থানীয় বাসিন্দা ও নিরাপদ চিকিৎসা চাই সংগঠনের সদস্য মেহেদী হাসান বলেন, নতুন ভবনটিতে যে সুযোগ সুবিধা রাখা হয়েছে তা কিছুই এখন আমরা পাবো না। শুধু ৫০ শয্যা বাড়ানো হয়েছে। আগের ১০০ শয্যার হাসপাতালে মানুষ ফ্লোরে বা নিচে চাদর পেতে চিকিৎসা নিত, এখন রোগীদের আর চাদর বা ফ্লোরে সেবা নিতে হবে না।’ এ সম্পর্কে মাদারীপুরের সিভিল সার্জন মুনীর আহম্মেদ খান বলেন, ‘আড়াইশ শয্যার নতুন ভবনে করোনা রোগীদের চিকিৎসা ও টিকা দেওয়ার কার্যক্রম করা হয়েছে। তবে এখন আর করোনা রোগীর চাপ নেই। আগের একশ শয্যার হাসপাতালে দুর্ভোগ ছিল। রোগীরা শয্যা না পেলে ফ্লোরে বা নিচে চাদর পেতে চিকিৎসা সেবা নিয়ে থাকতো। এর জন্য এলাকার জনগণের জোড় দাবি ছিল, যেন নতুন ভবনটি দ্রুত চালু হয়। তাদের দাবির কারণেই, আমরা আংশিকভাবে হলেও হাসপালটি চালুর উদ্যোগ হাতে নেই। আশা করছি, এখন থেকে চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম আগে থেকে সহজ হবে।’

মাদারীপুরের জেলা প্রশাসক রহিমা খাতুন বলেন, ‘আমরা হাসপাতালটি পূর্ণাঙ্গভাবে চালুর লক্ষ্যে সবধরনের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি। মূলত জনবল নিয়োগের জন্য কয়েকটি মন্ত্রনালয় জড়িত রয়েছে, তাই একটু দেরি হচ্ছে।’
সিভিল সার্জন ডা. মুনীর আহমেদ খান এর সভাপতিত্বে আয়োজিত সভায় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক ড. রহিমা খাতুন, পুলিশ সুপার মো: মাসুদ আলম, সাবেক পৌর মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল আলম চৌধুরী বাবু, বীর মুক্তিযোদ্ধা খলিলুর রহমান খান, সাবেক কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা শাহজাহান হাওলাদার, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সৈয়দ শাখাওয়াত সেলিমসহ অনেকেই।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বমোট ভিজিট করা হয়েছে

© All rights reserved © 2021

Design & Developed By : JM IT SOLUTION
error: Content is protected !!