1. : deleted-lq3vXzn1 :
  2. abdulmotin52@gmail.com : ABDUL MOTIN : ABDUL MOTIN
  3. madaripurprotidin@gmail.com : ABID HASAN : ABID HASAN
  4. jmitsolutionbd@gmail.com : support :
  5. : wp_update-1720111722 :
প্রশ্নপত্র ফাঁস, কোটিপতি হয়ে আপন ভাইদের সাথে সর্ম্পক রাখেনি আবেদ আলী - Madaripur Protidin
শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৪:৩৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
রাজৈরে আইনশৃংখলা কমিটির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত মাদারীপুরে ঢাকা-বরিশাল মহাসড়ক অবরোধ: ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া, আহত ৬ শিক্ষার্থী মাদারীপুরে স্ত্রীর স্বীকৃতি চাওয়ায় কলেজছাত্রীকে মারধর, এলাকায় তোলপাড় অযৌক্তিক কোটা যৌক্তিক পর্যায়ে নিয়ে আসা প্রয়োজন: মাদারীপুরে গৃহায়ন ও গনপূর্ত মন্ত্রী কালকিনিতে পাবলিক লাইব্রেরি উদ্বোধন কালকিনিতে দু’পক্ষের মাঝে সংঘর্ষ ॥ নিহত-১ ’ আহত-৯ মাদারীপুরে দুগ্ধপোষ্য ২ কন্যা শিশুকে গলাটিপে হত্যা করলেন মা মাদারীপুরে কোটা বাতিলের দাবিতে সড়ক অবরোধ প্রশ্নপত্র ফাঁস, কোটিপতি হয়ে আপন ভাইদের সাথে সর্ম্পক রাখেনি আবেদ আলী মাদারীপুরে ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দামের বিরুদ্ধে মটরসাইকেল চুরির ঘটনায় অভিযোগপত্র দাখিল

প্রশ্নপত্র ফাঁস, কোটিপতি হয়ে আপন ভাইদের সাথে সর্ম্পক রাখেনি আবেদ আলী

  • প্রকাশিত : বুধবার, ১০ জুলাই, ২০২৪, ৫.৫৭ পিএম
  • ৩৩ জন পঠিত

মাদারীপুর সংবাদদাতা:
পিএসসির চেয়ারম্যানের গাড়িচালক হয়ে রাতারাতি কোটিপতি হওয়ায় আপন ভাইদের সাথে সুসর্ম্পক রাখেনি সৈয়দ আবেদ আলী জীবন। গেলো কয়েকবছর ধরে নিজ বাড়ী মাদারীপুরের ডাসার উপজেলার পশ্চিম বোতলা গ্রামে এসে আলিশান বাড়ী করলেও আপন ভাইদের ভাগ্যের কোন পরিবর্তন হয়নি। এখনো দোচালা টিনের ঘরে ভাইয়েরা পরিবার নিয়ে বসবাস করেন। তাই তো আবেদ আলী গ্রেফতার হওয়ায় আপন ভাইদের কোন ক্ষোভ নেই, বরং তদন্ত করার দাবী তাদের।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, দোচালা টিনের ঘরে বসবাস করছে সৈয়দ আবেদ আলীর ছোট ভাই সাবেদ আলী। এখনো তিনি অটোরিক্সা চালিয়ে সংসার চালাচ্ছে। দু’মুঠো ভাত জোগাড় করতেই যেন হিমশিম খেতে হয়। ঘরেও নেই কোন জৌলস। তাতে আফসোস নেই সাবেদ আলীর। বড় ভাই আবেদ আলীর কোটিপতি হওয়ায় নিয়েও কোন দিন মাথা ঘামায়নি। বরং তার কাছে প্রতিবেশীরা কম-বেশি সহযোগিতা পেলেও আপন ভাইয়ের কোন খোঁজ নেইনি। ঈদ বা কোরবানীতে উপহার দিলেও গ্রহণ করেন না সাবেদ আলী। তাই তো আপন ভাই ও ভাতিজা গ্রেফতার হওয়াতে কোন আপেক্ষ বা অনুরাগ নেই সাবেদ আলীর। বরং বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করে পরিস্কার করার দাবী তার।

সৈয়দ আবেদ আলীর ছোট ভাই সাবেদ আলী জানান, ১৯৯৭ সালের দিকে আমি মেরাদিয়াতে চানাচুর বিক্রি করতাম। আবেদ আলী থাকতো ইন্দিরা রোডে। সে বেকার ছিল। মাঝে মধ্যেই আমার থেকে মেসের খরচের জন্য ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা নিত। তবে শাহিন নামে এক বন্ধুর মাধ্যমে পিএসসিতে চাকরি হওয়ার পর ওই বছরই সে বিয়ে করে। বিয়ের পরে সে আমাদের পরিবারের কারও সঙ্গে যোগাযোগ রাখেনি। এখনও তার সঙ্গে আমাদের কোনো সম্পর্ক নেই।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বমোট ভিজিট করা হয়েছে

© All rights reserved © 2021

Design & Developed By : JM IT SOLUTION