1. abdulmotin52@gmail.com : ABDUL MOTIN : ABDUL MOTIN
  2. madaripurprotidin@gmail.com : ABID HASAN : ABID HASAN
  3. jmitsolutionbd@gmail.com : support :
মাদারীপুরে বেপরোয়া কিশোর গ্যাং ॥ হামলা-নির্যাতনের শিকার অনেকে ॥ নির্যাতনের ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল - Madaripur Protidin
বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ০৫:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
মাদারীপুর জেলার শিবচরে  গাঁজাসহ একজন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার। রাজৈরে হত্যা মামলার আসামীকে কুপিয়ে গলা ও পায়ের রগ কেটে হত্যা, আটক এক জ্বালানী তেল পাচাররোধে দাম বৃদ্ধি করেছে সরকার: ….শাজাহান খান মানিকগঞ্জের দৌলতপুরের চাঞ্চল্যকর গর্ভবতী নিপা ও তার ৩ বছরের মেয়ে জোতি হত্যা মামলায় মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত আসামী জাকির হোসেন’কে সাভার থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪। ডাইনোসর যেভাবে মারা গেছে কিন্তু ডাকঘর মরবে না….ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তফা জব্বার। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নশীল বাংলাদেশে পরিনত হয়েছে- রাজৈরে প্রেসিডিয়াম সদস্য শাজাহান খান এমপি রাজৈরে হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভা মফস্বল সাংবাদিক ফোরামের রাজৈরের সভাপতি ফেরদৌস ও সম্পাদক সুজন নির্বাচিত। সংবাদ সম্মেলন টেকেরহাটে যুব লীগ নেতার উপর দুবৃত্তদের হামলা। হাতুড়ি পেটা। রাজৈরে বাস চাপায় গৃহবধুর নিহত। শিশু কন্যা গুরুতর আহত।

মাদারীপুরে বেপরোয়া কিশোর গ্যাং ॥ হামলা-নির্যাতনের শিকার অনেকে ॥ নির্যাতনের ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল

  • প্রকাশিত : রবিবার, ১২ জুন, ২০২২, ৯.২২ এএম
  • ১১৯ জন পঠিত

খোন্দকার রুহুল আমিন,  বিশেষ প্রতিনিধি ॥
কিশোর গ্যাংয়ের দৌরাত্ম বা এলাকাভিত্তিক আধিপত্য বিস্তার বেপরোয়া আকার ধারণ করছে। এরা রীতিমতো উঠতি বয়সি অপরাধীতে পরিণত হয়েছে। কথিত বড়ভাইদের আশীর্বাদের নতুন চকচকে খুদে আগ্নেয়াস্ত্র প্রদর্শন থেকে শুরু করে মাদকে সম্পৃক্ত হয়ে পড়ায় সমাজের চিন্তাশীল মানুষ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের ভাবিয়ে তুলছে। সম্প্রতি কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের দৌরাতœ্য ছড়িয়ে পড়েছে মাদারীপুর পৌর শহরে। গত কয়েক মাসে মাদারীপুর পৌর এলাকায় হত্যা-নির্যাতন, চাঁদাবাজি ও সংঘর্ষসহ একাধিক লোমহর্ষক ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় মামলা হলেও জামিনে বেরিয়ে এসে তারা আরও বেপরোয়া হয়ে উঠছে। বিষয়টি সাধারণ নাগরিক ও সচেতন মহলকে ভাবিয়ে তুলছে।

একাধিক সূত্রে জানা যায়, গত ৯ জুন বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মাদারীপুর সদর উপজেলার পশ্চিম খাগদী এলাকার হেদায়েত হাওলাদার (১৮) নামে এক তরুণ তার বন্ধুদের সঙ্গে ঘটমাঝি ব্যাপারীপাড়া এলাকায় যায়। এ সময় ব্যাপারীপাড়া এলাকার রাজীব ব্যাপারীসহ কয়েকজন তরুণের সঙ্গে হেদায়েতের বাকবিতন্ডা ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। ঘটনার কিছুক্ষণ পরেই ঘটমাঝি ব্যাপারীপাড়া এলাকার তরুণ ও কিশোররা দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে পশ্চিম খাগদী এলাকায় মহড়া দেয়। মহড়া দিয়ে ফেরার পথে তারা শের-ই বাংলা ক্লাব এলাকার ১৩টি দোকান ও ৪টি বসতঘরে ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়। এ সময় হামলাকারীদের বাঁধা দিতে গেলে আহত হন পাঁচজন।

৭ জুন মঙ্গলবার সন্ধায় মাদারীপুর সরকারি কলেজের রসায়ন বিভাগের সম্মান দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র তুষার সব্যসাচীকে (২০) কুপিয়ে জখম করেছে দুর্বৃত্তরা। তাকে উদ্ধার করে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কলেজ মাঠে বন্ধুদের সাথে আড্ডা দেওয়ার সময় দুপক্ষের কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে এই ঘটনা ঘটে। আহত তুষার সব্যসাচী সদর উপজেলার শিরখাড়া ই্উনিয়নের উত্তর শিরখাড়া গ্রামের কবি মিলন সব্যসাচীর ছেলে। তিনি মাদারীপুর শহরের ২নং শকুনি এলাকায় পরিবারের সাথে ভাড়া বাসায় থাকেন। এ সময় তাঁর বন্ধু বাপ্পিও আহত হয়।

আহত তুষার সব্যসাচী বলেন, “কলেজ মাঠে আমরা ৫/৬ বন্ধু আড্ডা দেই। হঠাৎ করে একদল জুনিয়র পোলাপান ও কিশোর গ্যাং পূর্বের তুচ্ছ বিষয় নিয়ে আমাদের সাথে কথা কাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে তারা দেশীয় অস্ত্র টেঁটা রামদা ছেনদা নিয়ে আমাদের ধাওয়া করে। আমরা দৌড় দিলে আমি কলেজ গেটে পরে গিয়ে পিছনে পড়ে যাই৷ এ সময় ওরা এসে আমাকে পায়ে ও হাতে ৫/৬টি কোপ মারে। এতে আমি গুরুতর জখম হই। ওরা সবাই কিশোর গ্যাং এবং কলেজ রোড এলাকার ছেলে পেলে। অনেকেই পড়াশোনা করে না এবং ২/১জন এসএসসি পরীক্ষা দিবে। ওদের কখনোই কলেজে দেখি না।”

গত ৪ জুন শনিবার বেলা সাড়ে ১১টার সময় দিকে মাদারীপুর শহরের আমিরবাদ এলাকার কিশোর শিশির খান ও শীতল হাওলাদার পুরানবাজারের স্বর্ণ ব্যবসায়ী মুন্না জমাদ্দারের (জমাদ্দার জুয়েলার্স) কাছে দুই লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে আসছিল। চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে শিশির ও শীতল মুন্না জমাদ্দারের উপর এ হামলা চালায়। এরইমধ্যে এই ঘটনার একটি সিসিটিভি ফুটেজ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যায় মোটরসাইকেল করে দুই যুবক দোকানের সামনে এসে স্বর্ণ ব্যবসায়ীকে ডেকে বাহিরে বের করে। এরপর একটি ব্যাগে থাকা রামদা বের করে কোপানো শুরু করে। ব্যবসায়ী মুন্না জমাদ্দার আত্মরক্ষায় চিৎকার দিলে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে পালিয়ে যায় ওই দুইযুবক। এই ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের হয়েছে ।

গত ৩ জুন শুক্রবার মাদারীপুর পৌর এলাকার সৈদারবালী ও ২নং শকুনি এলাকার কিশোরদের মধ্যে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সৈদারবালী এলাকার সেকেন হাওলাদারের ছেলে রোমান হাওলাদার শকুনি এলাকায় গেলে সাগর মুন্সী ও তার সহযোগীরা মারধর করে রোমানকে। ঘটনার কিছুদিন পরে শকুনি এলাকার তুষার হোসেন নামে এক কিশোর মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত হলে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি হয়। শুক্রবার সকালে শকুনি এলাকার সাগর মুন্সীর লোকজন হাসপাতালে তুষারকে দেখতে গেলে রোমানের সঙ্গে কথাকাটাকাটি হয়। এই খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে সাগর মুন্সী ও রোমান হাওলাদারের সমর্থকরা সৈদারবালী এলাকার দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পরে। এতে তিনজন টেঁটাবিদ্ধসহ আহত হয় অন্তত ১৫ জন। এ সময় বেশ কয়েকটি হাত বোমা বিস্ফোরণ ঘটিয়ে স্থানীয় একটি মসজিদসহ অন্তত পাঁচটি বসতঘরে ভাঙচুর করা হয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

গত ১৫ মে বিকেল ৫টার দিকে মাদারীপুর শহরের লঞ্চঘাট এলাকার অহিদ হাওলাদার ও ব্যবসায়ী কামাল হাওলাদারকে কুপিয়ে জখম করে স্থানীয় কিশোর গ্যাং নোবেল বেপারী ও তার দলবল। সেই দিন রাতেই কোপানোর একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ‘ফেসবুক’-এ ভাইরাল হয়। এঘটনায় পরের দিন ১৬ মে নোবেল বেপারীসহ ২৫ জনকে আসামি করে মাদারীপুর সদর মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয় এবং বিচারের দাবিতে মানববন্ধন করে । সম্প্রতি মাদারীপুরে ছড়িয়ে পড়া একটি ভিডিওতে দেখা যায়, কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যরা আধিপত্য বিস্তার নিয়ে প্রতিপক্ষ গ্রুপের সৈকত সরদার নামে এক কিশোরকে নির্দয়ভাবে পেটাচ্ছে।

৭ আগস্ট ২০২১ সালে মাদারীপুরের শামসুন্নাহার ভূঁইয়া বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ের পেছনের বালুর মাঠে প্রাইভেট ক্লাস করে ফেরার সময় দশম শ্রেণির ছাত্র সৈকতকে তুলে নিয়ে ৮-১০ জন কিশোর উপর্যুপরি আঘাত করে রক্তাক্ত করে। তাদেরই একজন সদস্য তা মোবাইল ফোনে ধারণ করে পরে ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়। ভিডিওটি মুহূর্তেই ভাইরাল হয়ে যায়।পরে মাদারীপুর সদর থানায় আহতের বাবা মামলা করেন। পুলিশ চারজনকে গ্রেফতারও করে। কিন্তু পরে তারা জামিনে বেরিয়ে এসে মামলার বাদীকে হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। অপরাধের বিচার চেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার এখন আতঙ্কে ভুগছে।

এছাড়া ২০১৯ সালের ২৯ অক্টোবর মাদারীপুর শহরের শান্তিনগর এলাকায় কয়েকজন কিশোর একটি ভবনের ছাদে সোহান শেখ নামের এক কিশোরকে নির্দয়ভাবে পিটিয়ে নিচে ফেলে দেয়, পরে সে মারা যায়। মামলা হলেও ক্ষমতার দাপটে ওই মামলার আসামিরা এখন আরও বেপরোয়া।

এ ব্যাপারে সচেতন নাগরিক কমিটির (সনাক) সভাপতি খান মো: শহীদ বলেন, আইনশৃংখলা বাহিনী সঠিক তথ্য উপাত্ব নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করলে কিশোর গ্যাংয়ের অপতৎপরতা কমে আসবে । পাশাপাশি নাগরিক হিসাবে অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের প্রতি বিশেষ গুরুত্ব দিলে এ ধরনের প্রবনতা হ্রাস পাবে বলে আমি মনে করি
মাদারীপুর মডেল থানার ওসি মোঃ মনোয়ার হোসেন চৌধুরী জানান, এসব অপরাধীদের গ্রেফতার করতে পুলিশ জোর তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বমোট ভিজিট করা হয়েছে

© All rights reserved © 2021

Design & Developed By : JM IT SOLUTION